আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে

আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে গানটি মান্না দে’র অত্যন্ত জনপ্রিয় গান। এই গানটি লিখেছিলেন গীতিকার পুলক বন্দোপাধ্যায় এবং সুর দিয়েছিলেন সুরকার নচিকেতা ঘোষ।

আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে - পুলক বন্দ্যোপাধ্যায় এর লেখা মান্না দে'র যত আধুনিক বাংলা গান [ Pulak Bandyopadhyay's modern Bengali song written for Manna Dey ]

[ আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে লিরিক্স, Amar bhalobasar rajprasade lyrics ]

আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে
নিশুতি রাত গুমরে কাঁদে
মনের ময়ুর মরেছে ঐ
ময়ুর মহলেই…
দেখি মুকুটটা তো পড়ে আছে
রাজাই শুধু নেই

আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে

দরবারে তার ছিলো আমার সোনার সিংহাসন
আমি হাজার হাতের সেলাম পেলাম
পেলাম না তো মন
আজ মখমলের ঐ পর্দাগুলো
ওড়ায় শুধু স্মৃতির ধূলো
ফুলবাগানের বাতাস এসে
আছড়ে পড়ে যেই
দেখি মুকুটটা তো পড়ে আছে
রাজাই শুধু নেই
আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে

আমার নাচঘরে যেই পাগল হত
নূপুর তোমার পায়
আমি ইরান দেশের গোলাপ ছুঁড়ে
দিতাম তোমার গায়
তুমি শ্বেত পাথরের গেলাস ভরে
অনেক সুধা দিতে ধরে
আমি বিষও পেলাম তোমার দেয়া
ঐ পেয়ালাতেই
দেখি মুকুটটা তো পড়ে আছে
রাজাই শুধু নেই
আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে

আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে
নিশুতি রাত গুমরে কাঁদে

নচিকেতা ঘোষ, Nachiketa Ghosh
নচিকেতা ঘোষ, Nachiketa Ghosh

নচিকেতা ঘোষ:

নচিকেতা ঘোষ ভারতের সবচেয়ে প্রশংসিত সঙ্গীত পরিচালক এবং সুরকার। তিনি মূলত বাংলা, হিন্দি ও ওড়িয়া ভাষায় গীত রচনা করেন। তিনি চলচ্চিত্রের গানসহ বাংলা আধুনিক গানকে এক নতুন মাত্রায় নিয়ে গেছেন। তিনি একজন চমৎকার গায়ক ছিলেন এবং গ্রামোফোনে একক কণ্ঠে তার গান বের হয়েছিল।

তার পিতা ডঃ সনত কুমার ঘোষ ছিলেন কলকাতার বিশিষ্ট চিকিৎসক। সনত বাবু একজন স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত ডাক্তার এবং পশ্চিমবঙ্গের বিখ্যাত মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়ের চিকিৎসক হিসেবেও কাজ করেছেন। পিতা চাইতেন তার বড় ছেলে নচিকেতা ঘোষ ডাক্তারি পড়াশোনা করুক। নচিকেতা ঘোষ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে রাধাগোবিন্দ কর মেডিক্যাল কলেজ (আর জি কর কলেজ) থেকে এমবিবিএস ডিগ্রী লাভ করেন। কিন্তু চিকিৎসাকে তিনি পেশা হিসাবে নিতে আগ্রহী ছিলেন না।

প্রত্যেক রবিবার, বিশিষ্ট সঙ্গিতজ্ঞ কৃষ্ণ চন্দ্র দে, সুবল দাসগুপ্ত, কমল দাশগুপ্ত, কানা সাতকারি ডঃ সনত কুমারের শ্যামবাজার বাড়িতে মিলিত হতেন এবং সেটা অল্পবয়েসে নচিকেতা ঘোষের ওপর প্রভাব ফেলে। বাংলার তৎকালীন সংগীত প্রতিভাদের কাছ থেকে দেখার সুযোগ ছিল তার। তিনি খুব ছোট বেলা থেকেই তাদের সঙ্গে তবলা বাজাতেন। ধীরে ধীরে তবলা(এবং সঙ্গীত) নচিকেতার প্রথম প্রেমে পরিনত হয়।

মাত্র ২৪ বছরে বয়সে নচিকেতা প্রতিশ্রুতিশীল সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে আবির্ভূত হন এবং বাংলা সঙ্গীত জগতে নতুন প্রবাহ সংযোজন করেন। সঙ্গীত রচনাশৈলীতে তার কৃতিত্ব অনন্য।

cropped Music Gurukul Logo আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে

আরও দেখুন:

“আমার ভালোবাসার রাজপ্রাসাদে”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন